Dawah wa Tablig Islamic Website

Help Line = Mob no. +8801783385346 :: Email Address = shalampb@gmail.com

Sura Aj-Juah to Sura An-Nas

সূচী-পত্রে ফিরে যাও

93 নং সূরা – আয-যুহা – اَلضُّحَىٰ

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 11
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আয-যুহা
وَٱلضُّحَىٰ
শপথ পূর্বাহ্নের।
02 – আয-যুহা
وَٱلَّيْلِ إِذَا سَجَىٰ
শপথ রাতের যখন ওটা সমাচ্ছন্ন করে ফেলে;
03 – আয-যুহা
مَا وَدَّعَكَ رَبُّكَ وَمَا قَلَىٰ
তোমার রাব্ব তোমাকে পরিত্যাগ করেননি এবং তোমার প্রতি বিরূপও হননি।
04 – আয-যুহা
وَلَلْءَاخِرَةُ خَيْرٌ لَّكَ مِنَ ٱلْأُولَىٰ
তোমার জন্য পরবর্তী সময়তো পূর্ববর্তী সময় অপেক্ষা শ্রেয় বা কল্যাণকর।
05 – আয-যুহা
وَلَسَوْفَ يُعْطِيكَ رَبُّكَ فَتَرْضَىٰٓ
অচিরেই তোমার রাব্ব তোমাকে এরূপ দান করবেন যাতে তুমি সন্তুষ্ট হবে।
06 – আয-যুহা
أَلَمْ يَجِدْكَ يَتِيمًا فَـَٔاوَىٰ
তিনি কি তোমাকে পিতৃহীন অবস্থায় পাননি, অতঃপর তোমাকে আশ্রয় দান করেননি?
07 – আয-যুহা
وَوَجَدَكَ ضَآلًّا فَهَدَىٰ
তিনি তোমাকে পেলেন পথ সম্পর্কে অনবহিত, অতঃপর তিনি পথের নির্দেশ দিলেন।
08 – আয-যুহা
وَوَجَدَكَ عَآئِلًا فَأَغْنَىٰ
তিনি তোমাকে পেলেন নিঃস্ব অবস্থায়, অতঃপর অভাবমুক্ত করলেন।
09 – আয-যুহা
فَأَمَّا ٱلْيَتِيمَ فَلَا تَقْهَرْ
অতএব তুমি পিতৃহীনের প্রতি কঠোর হয়োনা,
10 – আয-যুহা
وَأَمَّا ٱلسَّآئِلَ فَلَا تَنْهَرْ
আর সওয়ালকারীকে ভৎর্সনা করনা।
11 – আয-যুহা
وَأَمَّا بِنِعْمَةِ رَبِّكَ فَحَدِّثْ
তুমি তোমার রবের অনুগ্রহের কথা ব্যক্ত করতে থাকো।

94 নং সূরা – আশ-শার্‌হ – اَلشَّرح

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 8
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আশ-শার্‌হ
أَلَمْ نَشْرَحْ لَكَ صَدْرَكَ
আমি কি তোমার বক্ষ তোমার কল্যাণে উন্মুক্ত করে দিইনি?
02 – আশ-শার্‌হ
وَوَضَعْنَا عَنكَ وِزْرَكَ
আমি তোমা হতে অপসারণ করেছি তোমার সেই ভার –
03 – আশ-শার্‌হ
ٱلَّذِىٓ أَنقَضَ ظَهْرَكَ
যা তোমার পৃষ্ঠকে অবনমিত করেছিল;
04 – আশ-শার্‌হ
وَرَفَعْنَا لَكَ ذِكْرَكَ
এবং আমি তোমার খ্যাতিকে উচ্চ মর্যাদা দান করেছি।
05 – আশ-শার্‌হ
فَإِنَّ مَعَ ٱلْعُسْرِ يُسْرًا
কষ্টের সাথেই তো স্বস্তি আছে।
06 – আশ-শার্‌হ
إِنَّ مَعَ ٱلْعُسْرِ يُسْرًا
অবশ্যই কষ্টের সাথে স্বস্তি আছে।
07 – আশ-শার্‌হ
فَإِذَا فَرَغْتَ فَٱنصَبْ
অতএব যখনই অবসর পাও সাধনা কর,
08 – আশ-শার্‌হ
وَإِلَىٰ رَبِّكَ فَٱرْغَب
এবং তোমার রবের প্রতিই মনোনিবেশ কর।

95 নং সূরা – আত-তীন – اَلتِّين

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 8
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আত-তীন
وَٱلتِّينِ وَٱلزَّيْتُونِ
শপথ ‘তীন’ ও যাইতূন’ এর –
02 – আত-তীন
وَطُورِ سِينِينَ
শপথ ‘সিনাই’ পর্বতের –
03 – আত-তীন
وَهَٰذَا ٱلْبَلَدِ ٱلْأَمِينِ
এবং শপথ এই নিরাপদ বা শান্তিময় নগরীর –
04 – আত-তীন
لَقَدْ خَلَقْنَا ٱلْإِنسَٰنَ فِىٓ أَحْسَنِ تَقْوِيمٍ
আমিতো সৃষ্টি করেছি মানুষকে সুন্দরতম গঠনে,
05 – আত-তীন
ثُمَّ رَدَدْنَٰهُ أَسْفَلَ سَٰفِلِينَ
অতঃপর আমি তাকে হীনতাগ্রস্তদের হীনতমে পরিণত করি –
06 – আত-তীন
إِلَّا ٱلَّذِينَ ءَامَنُواۡ وَعَمِلُواۡ ٱلصَّٰلِحَٰتِ فَلَهُمْ أَجْرٌ غَيْرُ مَمْنُونٍ
কিন্তু তাদের নয় যারা মু’মিন ও সৎ কর্মপরায়ণ; তাদের জন্যতো আছে নিরবিচ্ছিন্ন পুরস্কার।
07 – আত-তীন
فَمَا يُكَذِّبُكَ بَعْدُ بِٱلدِّينِ
সুতরাং এরপর কিসে তোমাকে কর্মফল সম্বন্ধে অবিশ্বাসী করে?
08 – আত-তীন
أَلَيْسَ ٱللَّهُ بِأَحْكَمِ ٱلْحَٰكِمِينَ
আল্লাহ কি বিচারকদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ নন?

96 নং সূরা – আল-‘আলাক – اَلْعَلَق

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 19
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-‘আলাক
ٱقْرَأْ بِٱسْمِ رَبِّكَ ٱلَّذِى خَلَقَ
তুমি পাঠ কর তোমার রবের নামে, যিনি সৃষ্টি করেছেন।
02 – আল-‘আলাক
خَلَقَ ٱلْإِنسَٰنَ مِنْ عَلَقٍ
সৃষ্টি করেছেন মানুষকে রক্তপিন্ড হতে।
03 – আল-‘আলাক
ٱقْرَأْ وَرَبُّكَ ٱلْأَكْرَمُ
পাঠ করঃ আর তোমার রাব্ব মহা মহিমান্বিত,
04 – আল-‘আলাক
ٱلَّذِى عَلَّمَ بِٱلْقَلَمِ
যিনি কলমের সাহায্যে শিক্ষা দিয়েছেন।
05 – আল-‘আলাক
عَلَّمَ ٱلْإِنسَٰنَ مَا لَمْ يَعْلَمْ
তিনি শিক্ষা দিয়েছেন মানুষকে যা সে জানতনা।
06 – আল-‘আলাক
كَلَّآ إِنَّ ٱلْإِنسَٰنَ لَيَطْغَىٰٓ
বস্তুতঃ মানুষতো সীমালংঘন করেই থাকে,
07 – আল-‘আলাক
أَن رَّءَاهُ ٱسْتَغْنَىٰٓ
কারণ সে নিজেকে অভাবমুক্ত বা অমুখাপেক্ষী মনে করে।
08 – আল-‘আলাক
إِنَّ إِلَىٰ رَبِّكَ ٱلرُّجْعَىٰٓ
তোমার রবের নিকট প্রত্যাবর্তন সুনিশ্চিত।
09 – আল-‘আলাক
أَرَءَيْتَ ٱلَّذِى يَنْهَىٰ
তুমি কি তাকে দেখেছো যে বাধা দেয় –
10 – আল-‘আলাক
عَبْدًا إِذَا صَلَّىٰٓ
এক বান্দাকে যখন সে সালাত আদায় করে?
11 – আল-‘আলাক
أَرَءَيْتَ إِن كَانَ عَلَى ٱلْهُدَىٰٓ
তুমি লক্ষ্য করেছ কি যদি সে সৎ পথে থাকে?
12 – আল-‘আলাক
أَوْ أَمَرَ بِٱلتَّقْوَىٰٓ
অথবা তাকওয়ার নির্দেশ দেয়?
13 – আল-‘আলাক
أَرَءَيْتَ إِن كَذَّبَ وَتَوَلَّىٰٓ
তুমি লক্ষ্য করেছ কি যদি সে মিথ্যা আরোপ করে ও মুখ ফিরিয়ে নেয়?
14 – আল-‘আলাক
أَلَمْ يَعْلَم بِأَنَّ ٱللَّهَ يَرَىٰ
তাহলে সে কি অবগত নয় যে, আল্লাহ দেখছেন?
15 – আল-‘আলাক
كَلَّا لَئِن لَّمْ يَنتَهِ لَنَسْفَعًۢا بِٱلنَّاصِيَةِ
সাবধান! সে যদি নিবৃত্ত না হয় তাহলে আমি তাকে অবশ্যই হেচড়িয়ে নিয়ে যাব মাথার সম্মুখ ভাগের কেশগুচ্ছ ধরে –
16 – আল-‘আলাক
نَاصِيَةٍ كَٰذِبَةٍ خَاطِئَةٍ
মিথ্যাবাদী, পাপিষ্ঠের কেশগুচ্ছ।
17 – আল-‘আলাক
فَلْيَدْعُ نَادِيَهُۥ
অতএব সে তার পার্শ্বচরদের আহবান করুক।
18 – আল-‘আলাক
سَنَدْعُ ٱلزَّبَانِيَةَ
আমিও আহবান করব জাহান্নামের প্রহরীদেরকে।
19 – আল-‘আলাক
كَلَّا لَا تُطِعْهُ وَٱسْجُدْ وَٱقْتَرِب۩
সাবধান! তুমি তার অনুসরণ করনা। সাজদাহ কর ও আমার নিকটবর্তী হও। [সাজদাহ]

97 নং সূরা – আল-কাদ্‌র – اَلْقَدْر

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 5
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-কাদ্‌র
إِنَّآ أَنزَلْنَٰهُ فِى لَيْلَةِ ٱلْقَدْرِ
নিশ্চয়ই আমি ইহা অবতীর্ণ করেছি মহিমান্বিত রাতে;
02 – আল-কাদ্‌র
وَمَآ أَدْرَىٰكَ مَا لَيْلَةُ ٱلْقَدْرِ
আর মহিমান্বিত রাত সম্বন্ধে তুমি জান কী?
03 – আল-কাদ্‌র
لَيْلَةُ ٱلْقَدْرِ خَيْرٌ مِّنْ أَلْفِ شَهْرٍ
মহিমান্বিত রাত হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম।
04 – আল-কাদ্‌র
تَنَزَّلُ ٱلْمَلَٰٓئِكَةُ وَٱلرُّوحُ فِيهَا بِإِذْنِ رَبِّهِم مِّن كُلِّ أَمْرٍ
ঐ রাতে (মালাইকা) ফিরিশতাগণ ও রুহ অবতীর্ণ হয় প্রত্যেক কাজে তাদের রবের অনুমতিক্রমে।
05 – আল-কাদ্‌র
سَلَٰمٌ هِىَ حَتَّىٰ مَطْلَعِ ٱلْفَجْرِ
শান্তিই শান্তি! সেই রাত-ফাজরের আবির্ভাব পর্যন্ত।

98 নং সূরা – আল-বাইয়্যিনাহ – اَلْبَيَّنَة

মাদানী – আয়াত সংখ্যা: 8
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-বাইয়্যিনাহ
لَمْ يَكُنِ ٱلَّذِينَ كَفَرُواۡ مِنْ أَهْلِ ٱلْكِتَٰبِ وَٱلْمُشْرِكِينَ مُنفَكِّينَ حَتَّىٰ تَأْتِيَهُمُ ٱلْبَيِّنَةُ
কিতাবীদের মধ্যে যারা কুফরী করেছিল এবং মুশরিকরা আপন মতে অবিচল ছিল তাদের নিকট সুস্পষ্ট প্রমান না আসা পর্যন্ত।
02 – আল-বাইয়্যিনাহ
رَسُولٌ مِّنَ ٱللَّهِ يَتْلُواۡ صُحُفًا مُّطَهَّرَةً
আল্লাহর নিকট হতে এক রাসূল, যে আবৃত্তি করে পবিত্র গ্রন্থ,
03 – আল-বাইয়্যিনাহ
فِيهَا كُتُبٌ قَيِّمَةٌ
যাতে সু-প্রতিষ্ঠিত ব্যবস্থাসমূহ রয়েছে।
04 – আল-বাইয়্যিনাহ
وَمَا تَفَرَّقَ ٱلَّذِينَ أُوتُواۡ ٱلْكِتَٰبَ إِلَّا مِنۢ بَعْدِ مَا جَآءَتْهُمُ ٱلْبَيِّنَةُ
যাদেরকে কিতাব দেয়া হয়েছিল তারাতো বিভক্ত হল তাদের নিকট সু-স্পষ্ট প্রমাণ আসার পর।
05 – আল-বাইয়্যিনাহ
وَمَآ أُمِرُوٓاۡ إِلَّا لِيَعْبُدُواۡ ٱللَّهَ مُخْلِصِينَ لَهُ ٱلدِّينَ حُنَفَآءَ وَيُقِيمُواۡ ٱلصَّلَوٰةَ وَيُؤْتُواۡ ٱلزَّكَوٰةَۚ وَذَٰلِكَ دِينُ ٱلْقَيِّمَةِ
তারাতো আদিষ্ট হয়েছিল আল্লাহর আনুগত্যে বিশুদ্ধ চিত্ত হয়ে একনিষ্ঠভাবে তাঁর ইবাদাত করতে এবং সালাত কায়েম করতে ও যাকাত প্রদান করতে; এটাই সু-প্রতিষ্ঠিত ধর্ম।
06 – আল-বাইয়্যিনাহ
إِنَّ ٱلَّذِينَ كَفَرُواۡ مِنْ أَهْلِ ٱلْكِتَٰبِ وَٱلْمُشْرِكِينَ فِى نَارِ جَهَنَّمَ خَٰلِدِينَ فِيهَآۚ أُوۡلَٰٓئِكَ هُمْ شَرُّ ٱلْبَرِيَّةِ
কিতাবীদের মধ্যে যারা কুফরী করে তারা এবং মুশরিকরা জাহান্নামের আগুনে স্থায়ীভাবে অবস্থান করবে; তারাই সৃষ্টির অধম।
07 – আল-বাইয়্যিনাহ
إِنَّ ٱلَّذِينَ ءَامَنُواۡ وَعَمِلُواۡ ٱلصَّٰلِحَٰتِ أُوۡلَٰٓئِكَ هُمْ خَيْرُ ٱلْبَرِيَّةِ
যারা ঈমান আনে ও সৎ কাজ করে তারাই সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ।
08 – আল-বাইয়্যিনাহ
جَزَآؤُهُمْ عِندَ رَبِّهِمْ جَنَّٰتُ عَدْنٍ تَجْرِى مِن تَحْتِهَا ٱلْأَنْهَٰرُ خَٰلِدِينَ فِيهَآ أَبَدًاۖ رَّضِىَ ٱللَّهُ عَنْهُمْ وَرَضُواۡ عَنْهُۚ ذَٰلِكَ لِمَنْ خَشِىَ رَبَّهُۥ
তাদের রবের নিকট আছে তাদের পুরস্কার স্থায়ী জান্নাত, যার নিম্নদেশে নদী প্রবাহিত, সেখানে তারা চিরস্থায়ী হবে; আল্লাহ তাদের উপর প্রসন্ন এবং তারাও তাঁর উপর সন্তুষ্ট; ইহা এ জন্য যে, তারা তাদের রাব্বকে ভয় করে।

99 নং সূরা – আয-যিলযাল – اَلزَّلْزَلَة

মাদানী – আয়াত সংখ্যা: 8
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আয-যিলযাল
إِذَا زُلْزِلَتِ ٱلْأَرْضُ زِلْزَالَهَا
পৃথিবী যখন কম্পনে প্রবলভাবে প্রকম্পিত হবে,
02 – আয-যিলযাল
وَأَخْرَجَتِ ٱلْأَرْضُ أَثْقَالَهَا
এবং পৃথিবী যখন তার ভারসমূহ বের করে দিবে,
03 – আয-যিলযাল
وَقَالَ ٱلْإِنسَٰنُ مَا لَهَا
এবং মানুষ বলবেঃ এর কি হল?
04 – আয-যিলযাল
يَوْمَئِذٍ تُحَدِّثُ أَخْبَارَهَا
সেদিন পৃথিবী তার বৃত্তান্ত বর্ণনা করবে।
05 – আয-যিলযাল
بِأَنَّ رَبَّكَ أَوْحَىٰ لَهَا
তোমার রাব্ব তাকে আদেশ করবেন।
06 – আয-যিলযাল
يَوْمَئِذٍ يَصْدُرُ ٱلنَّاسُ أَشْتَاتًا لِّيُرَوْاۡ أَعْمَٰلَهُمْ
সেদিন মানুষ দলে দলে বের হবে, কারণ তাদেরকে তাদের কৃতকর্ম দেখানো হবে।
07 – আয-যিলযাল
فَمَن يَعْمَلْ مِثْقَالَ ذَرَّةٍ خَيْرًا يَرَهُۥ
কেহ অণু পরিমাণ সৎ কাজ করলে তাও দেখতে পাবে।
08 – আয-যিলযাল
وَمَن يَعْمَلْ مِثْقَالَ ذَرَّةٍ شَرًّا يَرَهُۥ
এবং কেহ অণু পরিমান অসৎ কাজ করলে তাও দেখতে পাবে।

100 নং সূরা – আল-‘আদিয়াত – اَلْعٰدِيٰت

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 11
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-‘আদিয়াত
وَٱلْعَٰدِيَٰتِ ضَبْحًا
শপথ উর্ধ্বশ্বাসে ধাবমান অশ্বরাজীর,
02 – আল-‘আদিয়াত
فَٱلْمُورِيَٰتِ قَدْحًا
যারা ক্ষুরাঘাতে অগ্নি স্ফুলিংগ বিচ্ছুরিত করে।
03 – আল-‘আদিয়াত
فَٱلْمُغِيرَٰتِ صُبْحًا
যারা অভিযান করে প্রভাতকালে,
04 – আল-‘আদিয়াত
فَأَثَرْنَ بِهِۦ نَقْعًا
এবং যারা ঐ সময়ে ধূলি উৎক্ষিপ্ত করে।
05 – আল-‘আদিয়াত
فَوَسَطْنَ بِهِۦ جَمْعًا
অতঃপর শত্রুদলের অভ্যন্তরে ঢুকে পড়ে।
06 – আল-‘আদিয়াত
إِنَّ ٱلْإِنسَٰنَ لِرَبِّهِۦ لَكَنُودٌ
মানুষ অবশ্যই তার রবের প্রতি অকৃতজ্ঞ,
07 – আল-‘আদিয়াত
وَإِنَّهُۥ عَلَىٰ ذَٰلِكَ لَشَهِيدٌ
এবং নিশ্চয়ই সে নিজেই এ বিষয়ের সাক্ষী।
08 – আল-‘আদিয়াত
وَإِنَّهُۥ لِحُبِّ ٱلْخَيْرِ لَشَدِيدٌ
এবং অবশ্যই সে ধন সম্পদের আসক্তিতে অত্যন্ত কঠিন।
09 – আল-‘আদিয়াত
أَفَلَا يَعْلَمُ إِذَا بُعْثِرَ مَا فِى ٱلْقُبُورِ
তবে কি সে সেই সম্পর্কে অবহিত নয় যে, কবরে যা আছে তা কখন উত্থিত হবে?
10 – আল-‘আদিয়াত
وَحُصِّلَ مَا فِى ٱلصُّدُورِ
এবং অন্তরে যা আছে তা প্রকাশ করা হবে?
11 – আল-‘আদিয়াত
إِنَّ رَبَّهُم بِهِمْ يَوْمَئِذٍ لَّخَبِيرٌۢ
সেদিন তাদের কি ঘটবে, তাদের রাব্ব অবশ্যই তা সবিশেষ অবহিত।

101 নং সূরা – আল-কারিয়াহ – اَلْقَارِعَة

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 11
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-কারিয়াহ
ٱلْقَارِعَةُ
মহা প্রলয়।
02 – আল-কারিয়াহ
مَا ٱلْقَارِعَةُ
মহা প্রলয় কী?
03 – আল-কারিয়াহ
وَمَآ أَدْرَىٰكَ مَا ٱلْقَارِعَةُ
মহা প্রলয় সম্বন্ধে তুমি কী জান?
04 – আল-কারিয়াহ
يَوْمَ يَكُونُ ٱلنَّاسُ كَٱلْفَرَاشِ ٱلْمَبْثُوثِ
সেদিন মানুষ হবে বিক্ষিপ্ত পতংগের মত।
05 – আল-কারিয়াহ
وَتَكُونُ ٱلْجِبَالُ كَٱلْعِهْنِ ٱلْمَنفُوشِ
এবং পর্বতসমূহ হবে ধূনিত রঙ্গীন পশমের মত।
06 – আল-কারিয়াহ
فَأَمَّا مَن ثَقُلَتْ مَوَٰزِينُهُۥ
তখন যার পাল্লা ভারী হবে –
07 – আল-কারিয়াহ
فَهُوَ فِى عِيشَةٍ رَّاضِيَةٍ
সেতো লাভ করবে প্রীতিপদ জীবন।
08 – আল-কারিয়াহ
وَأَمَّا مَنْ خَفَّتْ مَوَٰزِينُهُۥ
এবং যার পাল্লা হালকা হবে –
09 – আল-কারিয়াহ
فَأُمُّهُۥ هَاوِيَةٌ
তার স্থান হবে হা’বিয়াহ।
10 – আল-কারিয়াহ
وَمَآ أَدْرَىٰكَ مَا هِيَهْ
ওটা কি, তা কি তুমি জান?
11 – আল-কারিয়াহ
نَارٌ حَامِيَةٌۢ
ওটা অতি উত্তপ্ত অগ্নি।

102 নং সূরা – আত-তাকাসুর – اَلتَّكَاثُر

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 8
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আত-তাকাসুর
أَلْهَىٰكُمُ ٱلتَّكَاثُرُ
প্রাচুর্যের প্রতিযোগিতা তোমাদেরকে মোহাচ্ছন্ন করে রাখে,
02 – আত-তাকাসুর
حَتَّىٰ زُرْتُمُ ٱلْمَقَابِرَ
যতক্ষণ না তোমরা কাবরসমূহে উপস্থিত হচ্ছ।
03 – আত-তাকাসুর
كَلَّا سَوْفَ تَعْلَمُونَ
এটা সংগত নয়, তোমরা শীঘ্রই এটা জানতে পারবে।
04 – আত-তাকাসুর
ثُمَّ كَلَّا سَوْفَ تَعْلَمُونَ
আবার বলি, এটা সংগত নয়, তোমরা শীঘ্রই এটা জানতে পারবে।
05 – আত-তাকাসুর
كَلَّا لَوْ تَعْلَمُونَ عِلْمَ ٱلْيَقِينِ
সাবধান! তোমাদের নিশ্চিত জ্ঞান থাকলে অবশ্যই তোমরা মোহাচ্ছন্ন হতেনা।
06 – আত-তাকাসুর
لَتَرَوُنَّ ٱلْجَحِيمَ
তোমরাতো জাহান্নাম দেখবেই।
07 – আত-তাকাসুর
ثُمَّ لَتَرَوُنَّهَا عَيْنَ ٱلْيَقِينِ
আবার বলি, তোমরাতো ওটা দেখবেই চাক্ষুষ প্রত্যয়ে।
08 – আত-তাকাসুর
ثُمَّ لَتُسْـَٔلُنَّ يَوْمَئِذٍ عَنِ ٱلنَّعِيمِ
এরপর অবশ্যই সেদিন তোমরা সুখ সম্পদ সম্বন্ধে জিজ্ঞাসিত হবে।

103 নং সূরা – আল-‘আস্‌র – اَلْعَصْر

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 3
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-‘আস্‌র
وَٱلْعَصْرِ
মহাকালের শপথ!
02 – আল-‘আস্‌র
إِنَّ ٱلْإِنسَٰنَ لَفِى خُسْرٍ
মানুষ অবশ্যই ক্ষতির মধ্যে রয়েছে।
03 – আল-‘আস্‌র
إِلَّا ٱلَّذِينَ ءَامَنُواۡ وَعَمِلُواۡ ٱلصَّٰلِحَٰتِ وَتَوَاصَوْاۡ بِٱلْحَقِّ وَتَوَاصَوْاۡ بِٱلصَّبْرِ
কিন্তু তারা নয়, যারা ঈমান আনে ও সৎ কাজ করে এবং পরস্পরকে সত্যের উপদেশ দেয় ও ধৈর্য ধারণে পরস্পরকে উদ্ধুদ্ধ করে।

104 নং সূরা – আল-হুমাযাহ – اَلْهُمَزَة

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 9
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-হুমাযাহ
وَيْلٌ لِّكُلِّ هُمَزَةٍ لُّمَزَةٍ
দুর্ভোগ প্রত্যেকের, যে পশ্চাতে ও সম্মুখে লোকের নিন্দা করে,
02 – আল-হুমাযাহ
ٱلَّذِى جَمَعَ مَالًا وَعَدَّدَهُۥ
যে অর্থ জমায় ও তা গুণে গুণে রাখে।
03 – আল-হুমাযাহ
يَحْسَبُ أَنَّ مَالَهُۥٓ أَخْلَدَهُۥ
সে ধারণা করে যে, তার অর্থ তাকে অমর করে রাখবে।
04 – আল-হুমাযাহ
كَلَّاۖ لَيُنۢبَذَنَّ فِى ٱلْحُطَمَةِ
কখনও না, সে অবশ্যই নিক্ষিপ্ত হবে হুতামায়।
05 – আল-হুমাযাহ
وَمَآ أَدْرَىٰكَ مَا ٱلْحُطَمَةُ
হুতামা কী, তা কি তুমি জান?
06 – আল-হুমাযাহ
نَارُ ٱللَّهِ ٱلْمُوقَدَةُ
ওটা আল্লাহর প্রজ্জ্বলিত হুতাশন –
07 – আল-হুমাযাহ
ٱلَّتِى تَطَّلِعُ عَلَى ٱلْأَفْـِٔدَةِ
যা হৃদয়কে গ্রাস করবে।
08 – আল-হুমাযাহ
إِنَّهَا عَلَيْهِم مُّؤْصَدَةٌ
নিশ্চয়ই ওটা তাদেরকে পরিবেষ্টন করে রাখবে,
09 – আল-হুমাযাহ
فِى عَمَدٍ مُّمَدَّدَةٍۭ
দীর্ঘায়িত স্তম্ভসমূহে।

105 নং সূরা – আল-ফীল – اَلفِيل

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 9
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-ফীল
أَلَمْ تَرَ كَيْفَ فَعَلَ رَبُّكَ بِأَصْحَٰبِ ٱلْفِيلِ
তুমি কি দেখনি যে, তোমার রাব্ব হস্তি অধিপতিদের কিরূপ (পরিণতি) করেছিলেন?
02 – আল-ফীল
أَلَمْ يَجْعَلْ كَيْدَهُمْ فِى تَضْلِيلٍ
তিনি কি তাদের চক্রান্ত ব্যর্থ করে দেননি?
03 – আল-ফীল
وَأَرْسَلَ عَلَيْهِمْ طَيْرًا أَبَابِيلَ
তাদের বিরুদ্ধে তিনি ঝাঁকে ঝাঁকে পক্ষীকূল প্রেরণ করেছিলেন –
04 – আল-ফীল
تَرْمِيهِم بِحِجَارَةٍ مِّن سِجِّيلٍ
যারা তাদের উপর প্রস্তর কংকর নিক্ষেপ করেছিল।
05 – আল-ফীল
فَجَعَلَهُمْ كَعَصْفٍ مَّأْكُولٍۭ
অতঃপর তিনি তাদেরকে ভক্ষিত তৃণ সদৃশ করে দেন।

106 নং সূরা – কুরাইশ – قُرَيْش

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 4
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – কুরাইশ
لِإِيلَٰفِ قُرَيْشٍ
যেহেতু কুরাইশের আসক্তি আছে,
02 – কুরাইশ
إِۦلَٰفِهِمْ رِحْلَةَ ٱلشِّتَآءِ وَٱلصَّيْفِ
আসক্তি আছে তাদের শীত ও গ্রীষ্ম সফরের,
03 – কুরাইশ
فَلْيَعْبُدُواۡ رَبَّ هَٰذَا ٱلْبَيْتِ
অতএব তারা ইবাদাত করুক এই গৃহের রবের,
04 – কুরাইশ
ٱلَّذِىٓ أَطْعَمَهُم مِّن جُوعٍ وَءَامَنَهُم مِّنْ خَوْفٍۭ
যিনি তাদেরকে ক্ষুধায় আহার্য দান করেছেন এবং ভয় হতে তাদেরকে নিরাপদ করেছেন।

107 নং সূরা – আল-মা’ঊন – اَلْمَاعُون

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 7
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-মা’ঊন
أَرَءَيْتَ ٱلَّذِى يُكَذِّبُ بِٱلدِّينِ
তুমি কি দেখেছ তাকে, যে কর্মফলকে মিথ্যা বলে থাকে?
02 – আল-মা’ঊন
فَذَٰلِكَ ٱلَّذِى يَدُعُّ ٱلْيَتِيمَ
সেতো সে, যে পিতৃহীনকে রূঢ়ভাবে তাড়িয়ে দেয়,
03 – আল-মা’ঊন
وَلَا يَحُضُّ عَلَىٰ طَعَامِ ٱلْمِسْكِينِ
এবং সে অভাবগ্রস্তকে খাদ্য দানে উৎসাহ প্রদান করেনা,
04 – আল-মা’ঊন
فَوَيْلٌ لِّلْمُصَلِّينَ
সুতরাং পরিতাপ সেই সালাত আদায়কারীদের জন্য –
05 – আল-মা’ঊন
ٱلَّذِينَ هُمْ عَن صَلَاتِهِمْ سَاهُونَ
যারা তাদের সালাতে অমনোযোগী,
06 – আল-মা’ঊন
ٱلَّذِينَ هُمْ يُرَآءُونَ
যারা লোক দেখানোর জন্য ওটা করে।
07 – আল-মা’ঊন
وَيَمْنَعُونَ ٱلْمَاعُونَ
এবং গৃহস্থালীর প্রয়োজনীয় ছোট খাট সাহায্য দানে বিরত থাকে।

108 নং সূরা – আল-কাউসার – اَلْكَوْثَر

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 3
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-কাউসার
إِنَّآ أَعْطَيْنَٰكَ ٱلْكَوْثَرَ
আমি অবশ্যই তোমাকে কাওছার দান করেছি,
02 – আল-কাউসার
فَصَلِّ لِرَبِّكَ وَٱنْحَرْ
সুতরাং তোমার রবের উদ্দেশে সালাত আদায় কর এবং কুরবানী কর।
03 – আল-কাউসার
إِنَّ شَانِئَكَ هُوَ ٱلْأَبْتَرُ
নিশ্চয়ই তোমার প্রতি বিদ্বেষ পোষণকারীইতো নিবংর্শ।

109 নং সূরা – আল-কাফিরূন – اَلْكَافِرُون

মাক্বী – আয়াত সংখ্যা: 6
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-কাফিরূন
قُلْ يَٰٓأَيُّهَا ٱلْكَٰفِرُونَ
বলঃ হে কাফিরেরা!
02 – আল-কাফিরূন
لَآ أَعْبُدُ مَا تَعْبُدُونَ
আমি তার ইবাদাত করিনা যার ইবাদাত তোমরা কর,
03 – আল-কাফিরূন
وَلَآ أَنتُمْ عَٰبِدُونَ مَآ أَعْبُدُ
এবং তোমরাও তাঁর ইবাদাতকারী নও যাঁর ইবাদাত আমি করি,
04 – আল-কাফিরূন
وَلَآ أَنَا۠ عَابِدٌ مَّا عَبَدتُّمْ
এবং আমি ইবাদাতকারী নই তার যার ইবাদাত তোমরা করে আসছ,
05 – আল-কাফিরূন
وَلَآ أَنتُمْ عَٰبِدُونَ مَآ أَعْبُدُ
এবং তোমরা তাঁর ইবাদাতকারী নও যাঁর ইবাদাত আমি করি।
06 – আল-কাফিরূন
لَكُمْ دِينُكُمْ وَلِىَ دِينِ
তোমাদের জন্য তোমাদের কর্মফল এবং আমার জন্য আমার কর্মফল।

110 নং সূরা – আন-নস্‌র – اَلنَّصر

মাদানী – আয়াত সংখ্যা: 3
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আন-নস্‌র
إِذَا جَآءَ نَصْرُ ٱللَّهِ وَٱلْفَتْحُ
যখন আসবে আল্লাহর সাহায্য ও বিজয়,
02 – আন-নস্‌র
وَرَأَيْتَ ٱلنَّاسَ يَدْخُلُونَ فِى دِينِ ٱللَّهِ أَفْوَاجًا
এবং তুমি মানুষকে দলে দলে আল্লাহর দীনে প্রবেশ করতে দেখবে,
03 – আন-নস্‌র
فَسَبِّحْ بِحَمْدِ رَبِّكَ وَٱسْتَغْفِرْهُۚ إِنَّهُۥ كَانَ تَوَّابًۢا
তখন তুমি তোমার রবের কৃতজ্ঞতা মূলক পবিত্রতা ও মহিমা ঘোষণা কর এবং তাঁর সমীপে ক্ষমা প্রার্থনা কর; তিনিতো সর্বাপেক্ষা অধিক অনুতাপ গ্রহণকারী।

111 নং সূরা – আল-মাসাদ – اَلْمَسَد

মাক্কী – আয়াত সংখ্যা: 5
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-মাসাদ
تَبَّتْ يَدَآ أَبِى لَهَبٍ وَتَبَّ
ধ্বংস হোক আবু লাহাবের হস্তদ্বয় এবং ধ্বংস হোক সে নিজেও।
02 – আল-মাসাদ
مَآ أَغْنَىٰ عَنْهُ مَالُهُۥ وَمَا كَسَبَ
ওর ধন সম্পদ ও ওর উপার্জন ওর কোন উপকারে আসেনি।
03 – আল-মাসাদ
سَيَصْلَىٰ نَارًا ذَاتَ لَهَبٍ
অচিরেই সে শিখা বিশিষ্ট জাহান্নামের আগুনে প্রবেশ করবে,
04 – আল-মাসাদ
وَٱمْرَأَتُهُۥ حَمَّالَةَ ٱلْحَطَبِ
এবং তার স্ত্রীও-যে ইন্ধন বহন করে।
05 – আল-মাসাদ
فِى جِيدِهَا حَبْلٌ مِّن مَّسَدٍۭ
তার গলদেশে খেজুর বাকলের রজ্জু রয়েছে।

112 নং সূরা – আল-ইখলাস – اَلْإِخْلَاص

মাক্কী – আয়াত সংখ্যা: 4
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-ইখলাস
قُلْ هُوَ ٱللَّهُ أَحَدٌ
বলঃ তিনিই আল্লাহ, একক/অদ্বিতীয়।
02 – আল-ইখলাস
ٱللَّهُ ٱلصَّمَدُ
আল্লাহ কারও মুখাপেক্ষী নন।
03 – আল-ইখলাস
لَمْ يَلِدْ وَلَمْ يُولَدْ
তাঁর কোন সন্তান নেই এবং তিনিও কারও সন্তান নন,
04 – আল-ইখলাস
وَلَمْ يَكُن لَّهُۥ كُفُوًا أَحَدٌۢ
এবং তাঁর সমতুল্য কেহই নেই।

113 নং সূরা – আল-ফালাক – اَلْفَلَق

মাক্কী – আয়াত সংখ্যা: 5
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আল-ফালাক
قُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ ٱلْفَلَقِ
বলঃ আমি আশ্রয় চাচ্ছি ঊষার স্রষ্টার।
02 – আল-ফালাক
مِن شَرِّ مَا خَلَقَ
তিনি যা সৃষ্টি করেছেন উহার অনিষ্টতা হতে।
03 – আল-ফালাক
وَمِن شَرِّ غَاسِقٍ إِذَا وَقَبَ
অনিষ্টতা হতে রাতের, যখন ওটা অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়।
04 – আল-ফালাক
وَمِن شَرِّ ٱلنَّفَّٰثَٰتِ فِى ٱلْعُقَدِ
এবং ঐ সব নারীর অনিষ্টতা হতে যারা গ্রন্থিতে ফুৎকার দেয়,
05 – আল-ফালাক
وَمِن شَرِّ حَاسِدٍ إِذَا حَسَدَ
এবং অনিষ্টতা হতে হিংসুকের, যখন সে হিংসা করে।

114 নং সূরা – আন-নাস – اَلنَّاس

মাক্কী – আয়াত সংখ্যা: 6
بِسْمِ اللهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

01 – আন-নাস
قُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ ٱلنَّاسِ
বলঃ আমি আশ্রয় চাচ্ছি মানুষের রবের,
02 – আন-নাস
مَلِكِ ٱلنَّاسِ
যিনি মানবমন্ডলীর বাদশাহ বা অধিপতি।
03 – আন-নাস
إِلَٰهِ ٱلنَّاسِ
যিনি মানবমন্ডলীর উপাস্য।
04 – আন-নাস
مِن شَرِّ ٱلْوَسْوَاسِ ٱلْخَنَّاسِ
আত্মগোপনকারী কু-মন্ত্রণাদাতার অনিষ্টতা হতে।
05 – আন-নাস
ٱلَّذِى يُوَسْوِسُ فِى صُدُورِ ٱلنَّاسِ
যে কু-মন্ত্রণা দেয় মানুষের অন্তরে,
06 – আন-নাস
مِنَ ٱلْجِنَّةِ وَٱلنَّاسِ
জিনের মধ্য হতে অথবা মানুষের মধ্য হতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

শাইখ আব্দুর রব আফ্ফান- দাওয়াহ ওয়া তাবলীগ ক্লাস, বিষয়- আকিদা (শবেবরাত)-২০, তাং- ১০-৫-২০১৭
শাইখ সাইফুদ্দিন বেলাল মাদানী – DWT class, বিষয়- রাসূলের আনুগত্য- ১৮, তাং- ১৭-০৮-২০১৭
শাইখ সাইফুদ্দিন বেলালা মাদানী- কুরবানী-২০১৭, তাং- ১০-০৮-২০১৭
শাইখ জাকির হুসাইন- দাওয়াহ ওয়া তবলীগ ক্লাস, বিষয়- আরবী ভাষা শিক্ষা-৫, তাং- ২০-১১-২০১৬
শাইখ সাইফুদ্দিন বেলাল – DWT ক্লাস, বিষয়- যিলহজ্জ্ব মাসের ১০ দিনের আমল ও ফযিল, তাং- ১-৮-২০১৭
আহলি সুন্নাত ওয়াল জামাতের আকিদা, শাইখ সাইফুদ্দিন বেলাল মাদানী
© Dawah wa Tablig since 2013